উদ্যোক্তা হাট

উদ্যোক্তা হাট – কি, কেন, কিভাবে – আমার অভিজ্ঞতা

উদ্যোক্তা হাট – কি হয় এখানে? বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক (BdOSN) এর কার্যক্রমের একটি ফেসবুক গ্রুপ হচ্ছে “চাকরী খুঁজব না চাকরী দেব“; আর এই গ্রুপ থেকেই আয়োজন করা হয় উদ্যোক্তা হাট নামের এই হাটটি। এবার ২০১৭ সালের এপ্রিলের ৮-১০ তারিখ বসবে এর ৪র্থ আয়োজন।

এই গ্রুপের সাথে থাকার ফলে এবং প্রতিবার এই হাট নিয়ে আলোচনা করার ফলে আমার কাছে সাধারণ কিছু প্রশ্ন চলে আসে, সেগুলির একটা উত্তর সাজিয়ে দিচ্ছি এখানে; যাতে সবাইকে শুধু লিংকটা ধরিয়ে দিলেই পড়ে দেখতে পারেন।

উদ্যোক্তা হাট এ কি হয়?

এই হাটটি মূলত দেশী উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন পণ্য এবং সেবা সবার কাছে দেখানোর একটা উদ্যোগ। এই মেলাতে অংশগ্রহণ করা উদ্যোক্তারা তাদের সেবা এবং পণ্য সবার মাঝে সরাসরি উপস্থাপনের সহজ একটি সুবিধা এই মেলার থেকে পান। আর এই মেলাতে প্রতিবছরই প্রচুর সংখ্যক দর্শনার্থী আসে, ফলে দর্শনার্থীরাও দেশীও উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন পণ্য এবং সেবার সাথে সরাসরি পরিচিত হতে সুযোগ পান।

লোকজন হয় কেমন?

অনেকেই এই প্রশ্নটি করে থাকেন, মূলত যারা স্টল নিতে আগ্রহী তারা আরও বেশী এই কথাটি বলেন। এটির একটি ধারণা আপনাকে দেই। গতবছরও আমার WOWzer এর অন্যতম সেরা প্রোডাক্ট Magic Ruti Maker TM নিয়ে ছিলাম। দুই দিনের ঐ মেলায় শুধুমাত্র আমাদের স্টলে ভিজিট করবার জন্যই এসেছিলেন প্রায় হাজার দেড়েক দর্শনার্থী। যাদের সবাই আমাদের ফেসবুক পেজ এবং প্রমোশনের মাধ্যমে জেনেছিলেন যে রুটি মেকার এর একেবারে সরাসরি কাজ দেখা যাবে এখানে। আর ঠিক এমন ভাবেই বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাদের নিজেদের প্রচারণার মধ্যমে অনেক ভিজিটর এনেছিলেন। আর ২০১৬ সালের হাট এর খবর প্রথম আলো সহ বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা এবং টিভিতে প্রচার হয়। ফলে লোকজন কম হবার কোন সুযোগই ছিলো না। এবারও এমনটাই থাকছে।

আমার অভিজ্ঞতা

আমার প্রতিষ্ঠান থেকে বেশ চিন্তা ভাবনার পর হাটে যোগদান করি। প্রথমে আমারও আপনার মত একটু চিন্তা ছিলো না বললে ভুল হবে। তবে এক উদ্যোক্তা হাট থেকে আমি যেই উপকারীতা পেয়েছি, এ বছর তাই ঘোষণা আসার সাথে সাথে আমার স্টলটি বুক করেছি। গত বছর এই হাট এ আসবার আগে পর্যন্ত যেখানে আমাদের মাসের টার্গেট সেল আনতেই শত শত ডলার ফেসবুক এবং ইউটিউবকে দেওয়া লাগতো, সেখানে এক মেলার পর আমাদের টার্গেট পূরণ করতে সমস্যা তো হয়ই না, বরং আমরা দীর্ঘ্য মেয়াদে এর সুবিধা এখনও পেয়ে যাচ্ছি।

আপনার সেবা বা পণ্য মানুষ যখন নিজে সামনে দাড়িয়ে দেখবে, তখন অবশ্যই সেটির প্রতি বিশ্বাস জন্মাবে দ্রুতই।

এবার হাট কোথায় হচ্ছে?

এবারের হাটটি আয়োজন করা হচ্ছে রাজধানীর প্রান কেন্দ্রে অবস্থিত বসুন্ধরা সিটি কমপ্লেক্স এর বিপরীতে সামারাই কনভেনশন সেন্টারে। আপনাদের সুবিধার্থে ম্যাপটি দিয়ে দিচ্ছি।

samarai-map

আমি কি স্টল নিতে পারবো?

আমি যখন এই লেখাটি লিখছি (এপ্রিল ১, ২০১৭ রাত ৩:১৪ মিনিট), তখন পর্যন্ত আমার জানা মত খুব অল্প সংখ্যক স্টল ফাঁকা আছে। আপনারা কেউ স্টল নিতে চাইলে নিচের লিংকটিতে ক্লিক করে ইভেন্টে জয়েন করতে পারেন। ইভেন্ট লিংক এখানে

এই হাটে কারা কারা স্টল দেয়?

এই হাটে বাংলাদেশী উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন উদ্যোগের থেকে স্টল দেওয়া হয়। এর মধ্যে কিছু ইকমার্স থাকে, ছেলে-মেয়েদের ড্রেস সহ বিভিন্ন জিনিষ পত্র বিক্রির প্রতিষ্ঠান, অনলাইন ভিত্তিক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠান, আর আমাদের রুটি মেকার তো থাকছেই। এবারের হাটটির টাইটেল স্পন্সর হচ্ছে বাংলাদেশের অন্যতম বড় ইকমার্স ওয়েব সাইট ‘আজকের ডিল’। আর আকর্ষণীয় দিক হচ্ছে, ব্যবসা শুরু করে যারা টাকার জন্য ঘুরে বেড়ান, তাদের টাকা দেবার মত একটি প্রতিষ্ঠান ‘বিডি ভেঞ্চার’ও থাকছে এই হাট এ।

শেষ কথা

২০১৬ এর মেলায় আমরা বাইরে যেসব ব্যানার দিয়েছিলাম, তার একটি দেখে একজন বয়স্ক মানুষ এসেছিলেন, ঘুরে ঘুরে স্টল দেখেছিলেন। তার সাথে কথা বলতে বলতে জানতে পেরেছিলাম তার অনুভুতি। সেটাই লিখছি। তিনি বিভিন্ন দেশ ঘুরেছেন, সব দেশেই তরুণদের নিজ থেকে কিছু করবার জন্য উৎসাহ দেওয়া হয়। অপর দিকে আমাদের দেশে তরুণেরা চাকরীর পিছনে ঘুরছে, ছুটছে, জীবন নষ্ট করছে। কেউ কিছু করতে চাইলে সবাই পেছন থেকে টানছে। আর সেখানে আমরা কিছু তরুণ মিলে উদ্যোক্তা হবার কঠিন পথে নেমেছি, সেটাই তিন দেখতে এবং অভিবাদন জানাতে এসেছেন। “আমি বাবা কিছু কিনি বা না কিনি, সবাই যখন তোমাদের বলে পাগলামী ছাড়ো, আমি বলতে এসেছি পাগলামী করো। এতে যদি তোমার সাহস একটু হলেও বাড়ে, সেটাই দেশের আর দশের জন্য মঙ্গল।” তার এই শেষ কথাটা কখনও ভুলবো না। নিজে পারি বা না পারি, আর দশজন উদ্যোক্তার কাধে হাত রেখে ঠিক এই কথাগুলি বলতে চাই।

Leave a Reply