হামাসের যুদ্ধ বিরতি না মানা কি যুক্তিযুক্ত?

হামাসের যুদ্ধ বিরতি না মানা কি যুক্তিযুক্ত? প্রথমেই আপনি হ্যাঁ বা না বলে ফেলুন, তারপর পোষ্টটি পড়ুন।

ফিলিস্তিন-ইসরায়ীল ইস্যুতে গত কয়েকদিন ধরে সারা পৃথিবীই সরব। পৃথিবীর অধিকাংশ লোক চাইয়ে ইসরায়ীল তাদের আক্রমণ বন্ধ করুক; আর গুটি কয়েক মানুষ চাইছে যেন ফিলিস্তিন নিশ্চিন্হ হয়ে যায়। আবার কিছু লোক পুরাই কনফিউজড যে কি হইতেছে।

আপনি যদি ইসরায়ীলী ডিফেন্সের ফেসবুক ফ্যান পেইজে ঢুকেন, তাহলে দেখবেন তারা লিখে ভরে ফেলেছে যে হামাস/ফিলিস্তিনীরা তাদের উপরে রকেট হামলা চালাচ্ছে দেখেই তাদের এই আক্রমণ। এই জিনিষ পড়ে অনেকেই টাস্কি খাইতেছে; তাদের ধারণা হইতেছে যে ইসরায়ীল তো তাইলে ঠিক কাজটিই করতেছে।

কিন্তু না, ইসরায়ীল মোটেও ঠিক কাজ করতেছে না। এবং এটা বুঝতে আপনাকে জানতে হবে ফিলিস্তিনের ইতিহাস। ছোট্ট একটা একটা উদাহরণ দেই, ধরেন আপনার একটা বড় জমিতে আপনি কাউকে আশ্রয় দিয়েছিলেন; এবং সে ক্রমশ্য আপনাকে এককোনে ফেলে আপনার জায়গার প্রায় পুরোটুকুই দখল করে নিলো। এখন আপনি যদি তার দিকে ইট পাটকেল ছুড়েন, তাহলে কি আপনার অপরাধ হবে? বরং আপনার ইটপাটকেল ছোড়াটাই কি যুক্তি সংগত না? আবার এই ইটপাটকেলের জবাবে যদি সে বড় বড় পাথর ছুড়ে, সেটা অবশ্যই অত্যাচার।

আবার এরপর আর একটা লজিক ইসরায়ীলী ডিফেন্সের ফেসবুক ফ্যান পেইজে উঠে আসছে। তা হলো, হামাস নাকি সাধারণ মানুষের ঘর বাড়িকে তাদের অস্ত্রের ভান্ডার হিসাবে কাজ করছে। এখানেও একই কথা। পুরা জাতী ধরেই আজকে নির্যাতনের স্বীকার। তারা নিজেরাই এইটা করতে দিচ্ছে। এমন না যে হামাস জোর করে করতেছে। আমার বাংলাদেশ কে যদি আজকে কেউ দখল করে নিয়ে সবাইকে জোর করে চিটাগং এর মধ্যে ঢুকায় রাখে, তখন চিন্তা করেন যে আপনার ঘরের খাটের নিচে আপনি মিসাইল রাখতে দিবেন কি দিবেন না। যদি না দিতে চান, তাহলে আপনি এতটুকু লিখে রাখতে পারেন, আপনি আর যাই হোন, মানুষ না এবং দেশপ্রেমিকতো না-ই।

এবার আসি যুদ্ধবিরতী বিষয়ে। আপনার জায়গা দখল করলো, আপনার উপর ইচ্ছামত বোমা ফেলে আপনার সন্তানকে হত্যা করলো; এবং সে একসময় বলল ওকে, আর মারবো না। আপনি কি মেনে নিবেন? আপনি কি চাইবেন না এর বিচার হোক? নাকি তারা আজকে আর মারবে না শুনেই আপনি চুপচাপ আপনার সন্তানের রক্তে ভেজা আঙ্গুল গালের মধ্যে নিয়ে চুশতে থাকবেন?

আপনি হয়ত বা বলবেন যে হামাসের শক্তি নাই, তবুও তারা কেন ছাড়ান দিতে চায় না। উত্তর একটাই। আপনার সন্তান যদি কারও হাতে মারা যায়, আপনার শক্তি না থাকলেও আপনি কি ছাড়ান দিবেন? আমার মনে হয় না আপনি ছাড়ান দিবেন।

তাই, আপনার প্রোফাইলে যদি এমন কেউ থেকে থাকে যে হামাসের এই যুদ্ধ বিরতি না মানার বিষয়ে কুড়কুড়ানি মার্কা পোষ্ট দেয়, এদের চিনে রাখেন। আমার দেশ যদি আক্রান্ত হয়, এরাই হবে দেশের শত্রু, এরাই সবার আগে তল্পিতল্পা নিয়ে পালাবে। এরা মানুষ না, এরা জালিম, নির্বোধ।

4 thoughts on “হামাসের যুদ্ধ বিরতি না মানা কি যুক্তিযুক্ত?

  1. যেখানে হামাসের করার মত কিছুই নাই, সেখানে তাদের এই বড় বড় কথার মানে নাই, তাদের এই গুয়ারতুমি নিরিহ ফিলিস্তিনে ভোগান্তির কারন হয়ে দারিয়েছে…

    • বিষয়টা ঠিক সেই রকমও না। কারণ চুপ করে থাকতে থাকতে তারা তাদের ভুখন্ড এর মধ্যেই প্রায় পুরোটুকু হারিয়েছে। যতটুকু তারা পরে ডিফেন্ড করবে এটাই উচিত। কাপুরুষের মত চুপ করে মরে যাবার চাইতে বুক ফুলিয়ে মরাটাই কি ভালো না?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *