বিম্পি ছাড়া ইসরাইল অচল

বিম্পি ছাড়া ইসরাইল অচল হয়ে পড়বার এক সমূহ সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। বিম্পির সময় তারা ফিলিস্তিনিদের উপরে হামলা চালানোর সাহস পাইছিলো, কারণ তাদের বিম্পি সহায়তা করেছিল। আবার এখন আপাতত যেহেতু বিম্পির কোন কাজ কাম নাই, তাই মনে করাই যায় যে বিম্পি তাদের সহায়তা করতেই ব্যাস্ত!

কয়েকদিন আগে লিখেছিলাম আবাল গাছে ধরে না, আমাদের আশেপাশেই ঘুরে! এখানে বেশ কয়েক রকম আবালের উদাহরণ দিয়েছিলাম। এখন মনে হচ্ছে আরও এক প্রকার আবালের কথা নিয়ে সামনে লিখতেই হবে। না না না, সেই আবাল আমাদের আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ নন; সেই আবাল আমরা আম জনতা! জ্বী ভাই, কারণ আমরা এখনও দেশে ধাক্কা দিয়ে বিল্ডিং ফেলে দেওয়ার মত থিউরির পাশাপাশি এমন অনেক আজব আজব কথা শুনি কিন্তু এটা নিয়া হাসি ঠাট্টা ছাড়া আর কিছুই করতে পারি না। রাজনৈতিক হিসাবে আমাদের দেশের সকল দলই আসলে সফল! কারণ তারা তাদের মন মত আমাদের মুখ বন্ধ করে রাখতে সফল! আমরা সব মানি।

যাই হোক, আবার আগের কথায় চলে আসি। আসলেইতো বিম্পি ছাড়া ইসরাইল অচল; তারা অস্ত্র না দিলে ইসরাইল অস্ত্র পাবে কোথার থেকে? তারা সাহস না জুগালে কি ইসরাইল সাহস পায়? উহু, পায় না। তাই বিম্পি ছাড়া আসলেই তারা অচল। আমারতো ধারণা খুব শিগ্রী এমন ঘোষণাও আসতে পারে যে বিম্পির এক নেতা ইউরোপে বসে বসে ওখান থেকে সব কন্ট্রোল করতেছে।

গত কয়েকদিন আগে আরও একটা লেখা লিখেছিলাম হামাসের যুদ্ধ বিরতি না মানা কি যুক্তিযুক্ত? এই লেখাটা লেখার পর আমার ফ্রেন্ড লিষ্টের কিছু লোক আমাকে কইসা গালি দিছে, কিন্তু ওপেন এয়ার কনসার্টে না, ইন্ডোর কনসার্টে, মানে ইনবক্সে। কিন্তু গালি ছাড়া কিছুই ঠিক মত কইতে পারে না। এর পর গতকাল লিখেছিলাম কিছু লোক গরুর পশ্চাৎদেশ চুমিবেই! সেখানে টুকটাক আকারে কিছু লোকের অবস্থা ব্যাখ্যা করেছিলাম। তারাও কম যায় নাই।

আজকে দেখলাম পাশের দেশের কিছু পেইজ থেকে তারা সুন্দর ভাবে লিখতেছে যে তারা ইসরাইলের সাথেই আছে! এবং আরও অবাক হলাম, ঐ পেইজ গুলাতে আমার ফ্রেন্ড লিষ্টের যারা লাইক দিয়ে রাখছে তাদের অনেকেই আমাকে গালি দিয়ে গেছে। বুঝিতে পারিয়াছি দাদা, তোমাদের সমস্যা কোথায়! তাই আর কিছু বলি নাই।

যাবার আগে একটা জোকস শেয়ার করে যাই, পড়ে বুঝতে হয়ত একটু সময় লাগতে পারে বুঝতে, তবে বুঝবেন আশাকরি। জুলাই ২০, ২০১৪ তারিখে বাংলা নিউজ একটা খবর প্রকাশ করেছে। শিরোনাম, ইহুদিদের সঙ্গে বিএনপির যোগাযোগ থাকতে পারে। এখানে একদম শেষ প্যারাটা শুরু হয়েছে এভাবে, “হিন্দু-বৌদ্ধ-খিস্ট্রান ঐক্য পরিষদের সভাপতি চিত্তরঞ্জন দাসের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাজী মো. সেলিম…..”

জোকস টা কি বুঝতে পেরেছেন? 😉 আর একটা ছবি দেই।

gaja hamla

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *