চাকরী পাওয়ার জন্য সব মামা-চাচ্চুর ঠিকানে পাবেন এখানে!

চাকরী পাওয়ার জন্য সব মামা-চাচ্চুর ঠিকানে পাবেন এখানে! জ্বী হ্যাঁ ভাই-বোনেরা; আমার এই ব্লগে আজকে আমি সবাইকে ফ্রিতে চাকরী পাওয়ার জন্য সব মামা-চাচ্চুর ঠিকানা দিবো। অর্থাৎ এই লেখার সব ঠিকানা যোগাড় করে আপনাকে বেছে নিতে হবে মামা-চাচ্চুদের, যারা ভবিষ্যতে আপনাকে চাকরী পাইতে সহায়তা করবেন। তবে সাবধান; যাদের মাথায় সাধারণ মানের বুদ্ধি, তারা এই ঠিকানা গুলা নাও বুঝতে পারেন, শুধু যাদের মাথায় বেশ মোটা বুদ্ধি, তারা এটা বুঝবেন।

আর এক্টু জ্বলাই? একটা প্রশ্ন ছিলো! না না না, জ্বালাইতে চাইয়া যেই প্রশ্ন করছি ঐটা না; অন্য আর একটা প্রশ্ন। প্রশ্ন হচ্ছে, চাকরী দেয় কারা?

যারা আমাকে পারসোনালি চিনেন, তারা নিশ্চিত ধরে ফেলছেন এবার আমি কোন লাই্নে নামছি। হ্যাঁ, চাকরী দেয় কারা একটা বড় প্রশ্ন। চাকরী দেয় কোন না কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান! আপনি হয়ত বলবেন যে কত ননপ্রফিট অর্গানিজেশন আছে, কত কি আছে, সবই যে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তা তো নয়। তবে মূল কথা হলো প্রায় সব কিছুই কোন না কোন ভাবে ব্যবসা। না বুঝলে বুঝাবো অন্য কোন লেখায়, আজ নয়।

যাই হোক, যা বলছিলাম; চাকরী দেয়ে কোন না কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। আর সেই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের যে মালিক সে কোন না কোন মানুষ এবং সব থেকে বড় বিষয় সে চাকরী দাতা (চাকরীজীবি নন) ও মালিক!

আচ্ছা, এবার আসি মামা-চাচ্চু কেন লাগবে তা নিয়ে কথা বলতে, কারণ মামা-চাচ্চু কেন লাগবে সেটা না জানলে হুদা কামে ঠিকানা দিয়ে কি করবেন? মামা-চাচ্চু লাগে চাকরী পেতে, অন্তত আমাদের প্রায় সবারই তাই ধারণা! মামা-চাচ্চুরা আমাদের দুই পায়ে এবং দুই হাতে ধরে প্রথমে এপাশ ওপাশ দুলান, তারপর চেলে মারেন চাকরীর মধ্যে; তাই তো? হ্যাঁ সবারই এমন ধারণা। সবার ধারণা যে মামা-চাচ্চু না থাকলে নাকি চাকরী পাওয়া যায় না।

এখন হিসাব করেনতো, একটা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান কি জন্য তৈরী হয়? সহজ উত্তর, ব্যবসার জন্য। মানুষ ব্যবসা করে কেন? টাকা ইনকামের জন্য। টাকা ইনকাম করতে কি করা লাগে? লাভ করা লাগে।  সোজা বাংলায় ব্যবসা করতে আসে মানুষ লাভের উদ্দেশ্যে। আর লাভ করতে হলে নিশ্চই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এমন সব লোক বসানো লাগে, যারা আসলেই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে লাভের মুখ দেখাতে পারবেন। এখন প্রশ্ন কারা পারবেন? সোজা উত্তর, যোগ্য লোকে পারবেন।

এবার একটু হিসাব করেন। মামা-চাচ্চু যে আপনাকে চ্যাংদোলা করে চাকরীর মাঝে ফেলবেন; কি করে ফেলবেন যদি আপনার যোগ্যতা নাই থাকে? আপনার ধারণা আপনার মামা-চাচ্চু হেব্বি চালাক-চতুর? একটু ভেবে দেখেছেন কি ঐ প্রতিষ্ঠানের মালিকও কিন্তু আপনার ঐ মামা-চাচ্চুকে চালান; অর্থাৎ আপনার মামা-চাচ্চু আর যাই হোক ঐ মালিকের চাইতে বেশী চালাক না; চালাক হলে মালিক হয়ে বসতেন।

কি বলতে চাইছি? আমি সোজা সাপ্টা একটা ম্যাসেজ দিতে চাইতেছি। মামা-চাচ্চুর অপেক্ষা না করে নিজেকে যোগ্য করে গড়ে তুলুন। কাজে দিবে। আপনি যা পড়ছেন, যা করছেন তা এমন ভাবে করুন যেন আপনার থেকে আর ভালো করে কেউ না পারে; আপনার লেখাপড়া কি করে আমাদের দৈনন্দিন জীবনের সাথে বা একটা কম্পানির সাথে খাটবে তা আপনাকেই আবিষ্কার করতে হবে এবং তা কি করে সম্পূর্ণ সঠিক ভাবে কম্পানিতে এপ্লাই করা যায় তা আপনাকেই শিখতে হবে। এতে করে আপনি হয়ে উঠবেন দক্ষ একজন মানুষ।

মামা-চাচ্চুর বদৌলতে চাকরী কি হয়ই না? আরে ভাই, সারা দেশে সব ক্ষেত্রেই দুর্নিতি, সেখানে চাকরীর জন্য দুর্নিতি হয়না বললে তো আমাকে পাগল বলে মানুষ পিডাবো। কিন্তু তাই বলে কি সবাই এমনে চাকরী পাইতেছে? মোটেও না! একটা বড় প্রতিষ্ঠানে আমি আমার টিম নিয়ে কাজ করেছিলাম; সেখানে দেখেছিলাম যে লোক নিবে ৫০ এর বেশী, কিন্তু তারা ঘোষণা দিছে মাত্র ৫জনের কথা! কেন? কারণ তারা জানে যে সরকারের উপর লেভেল থেকে শুরু করে আত্মীয়স্বজনের চাপ থাকবে, তাই তারা ঐ ৫জনকে মামা-চাচ্চুর ভরষার উপরে ছেড়ে দিয়ে বাকিদের নিবে যোগ্যতা বাছাই করে। প্রায় সব খানেই এমন হয়।

আচ্ছা, কখনও খবর নিয়েছেন ঐ ৫জনের কি হয়? আপনি হয়ত জানেনই না যে ঐ ৫জন খুব বেশীদূর আগাতে পারেন না; যারা রেফরেন্সে চাকরী পায়, যদি নিজের প্রচন্ড যোগ্যতা না থাকে, তারা ঐ অবস্থানেই রয়ে যায়, স্যালারী বাড়ে না, আরও ম্যালা ক্যাচাল। আবার অনেকেরই প্রোবেশন প্রিয়ড শেষ হতে না হতেই কম্পানি থেকে দূর দূর করে তাড়িয়ে দেয়।

আমার নিজের দেখা কয়েকটি উদাহরণ দেই। আমার এক বন্ধু (নাম বলবো না, সে মাইন্ড করবে) তার আপন চাচার জোরে একটি ঔষধ  কম্পানিতে ঢুকেছিলো। তার সাথে একই পদে নিজের যোগ্যতায় আর এক ছেলে ঢুকেছিলো; বেতনের তফাত মাত্র ১০,০০০ টাকা। আমার বন্ধু পাইতো ১২,০০০, আর ঐ ছেলে পাইতো ২২,০০০। গত ৩ বছরে আমার বন্ধুর প্রমোশন ১টা, বেতন বেড়ে এখন ১৫,০০০; আর ঐ ছেলে ২টা প্রমোশন নিয়ে এখন ৩৫ হাজার টাকার স্যালারী গুনে।

আমার আর এক বন্ধু রুবায়েত এবং তার বউ সিন্থিয়া (সে আমার বান্ধবীও বটে), দুইজনে কখনও গ্রেডের পিছে দৌড়ায় নাই, মামা-চাচ্চুর দিকে তাকায় নাই। ছাত্রাবস্থায় তারা দুইজনেই চাকরী করতো গ্রামীনফোন এ। সেখান থেকে নিজেদের যোগ্যতায় রুবায়েত গেল নভোএয়ার এ, আর সিন্থিয়া গেল প্রথমে বেনটেল লিমিটেড এ এবং সেখান থেকে নভোএয়ারে। এখন বন্ধুটি চাকরী করে USAID এ আর তার বউ আছে ব্রিটিশ কাউন্সিল এ। আমি তাদের চিনি জানি, আমি জানি এই প্রসেসে তাদের কেউ কখনও রেফার করেনি। নিজের যোগ্যতায় তারা এখানে।

আরও এক ভাইকে চিনি, যিনি ভার্সিটি থেকে আমার জানা মতে ২.৫ এর সামান্য কিছু বেশী রেজাল্ট নিয়ে পাশ করে বের হয়েছিলেন। অন্যেরা ভয় পেতো সে চাকরী পাবে কি না, আর সে ভয় পেতো যে কম্পানি তাকে একবার পেলে আর ছাড়বে কি না! প্রথমে স্ট্যান্ডার্ড চ্যাটার্ড ব্যাংক, তারপর এখন আছেন কমার্সিয়াল ব্যাংক অফ সিলন এ।

কি করে পারে এমন? সেটার উত্তর দেই আপনারই পরিচিত এক সিনেমা থেকে, 3 idiots মুভি নিশ্চই দেখেছেন, সেখানে একজায়গায় নায়ক বলেন “Beta kabil bano kabil, Kamyabi to sali zak mar ke tumhare piche ayegi..”।

আমার ধারণা আপনাকে আর কিছু বলে দিতে হবে না। ভালো থাকুন

6 thoughts on “চাকরী পাওয়ার জন্য সব মামা-চাচ্চুর ঠিকানে পাবেন এখানে!

  1. ভাল লিখেছেন।
    আমাদের মেধার যুদ্ধে জয়ী হতে হবে…
    আচ্ছা আমরা যে পড়া গিলি এটার সম্পর্কে আপনার মতামত কি?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *